পার্সেল খুলে চক্ষু চড়কগাছ! অনলাইনে হেডফোনে কিনে প্রতারিত যুবতী !

তরুণী তখন ডেলিভারি বয়ের মোটর বাইকের চাবি নিয়ে নেন। এরপর অনেক বাকবিতণ্ডার পর ডেলিভারি বয় তরুণীকে তার টাকা ফেরত দিয়ে মোটর বাইকের চাবি নিয়ে চলে যান।

0
1263
Image-Google

অনলাইনে আমরা কমবেশি সকলেই জিনিস অর্ডার করি।অর্ডার করার পর জিনিসটি ঠিকঠাক পেলে আমাদের মন ভালো হয়, নচেৎ অর্ডার করার পর জিনিসটি যদি ঠিকঠাক না হয় বা এক জিনিস এর পরিবর্তে যদি অপর জিনিস অর্ডার হয় সে ক্ষেত্রে আমাদের মনটা স্বাভাবিকভাবেই খারাপ হয়ে যায়।

তুফানগঞ্জ শহরের এক যুবতীর সাথে ঠিক এরকম একটি ঘটনা ঘটেছে। তিনি যে জিনিসটা অর্ডার করেছিলাম সেটা না পেয়ে তিনি পার্সেল ফেরত দেন, ও টাকা ও ফেরত নিয়ে নেন। ঠিক কী ঘটেছিল তার সাথে?

শুক্রবার দুপুরে তুফানগঞ্জ শহরের নৃপেন্দ্র নারায়ণ মেমোরিয়াল উচ্চবিদ্যালয়ের মেইন গেটের সামনে একজন ডেলিভারি বয় তার নিয়মমাফিক ডেলিভারি করতে এসেছিলেন। অন্বেষা দত্ত নামের একজন তরুণী একটি জিনিস অর্ডার করেন অনলাইনে। সেই অর্ডারের জিনিস দিতে ডেলিভারি বয় আসেন।

৫ সেপ্টেম্বর অন্বেষা একটি ঘড়ির সঙ্গে একটি হেডফোন অর্ডার করেছিলেন। শুক্রবার দুপুরে যখন ডেলিভারি বয় তার পার্সেলটি নিয়ে আসে,ঐ যুবতী তখন ১৬৯৯ টাকা দিয়ে পার্সেলটি ডেলিভারি বয়ের হাত থেকে নেন। ডেলিভারি বয়ের সামনেই তিনি পার্সেলটি খুলে দেখেন, পার্সেলটি খুলে তরুণী থ হয়ে যান।

 

পার্সেলটি খুলে তিনি দেখেন তার মধ্যে একটি মাত্র হেডফোন আছে। যার মূল্য ৫০০ টাকার বেশি নয়। এরপর ডেলিভারি বয়কে তিনি তার টাকা ফেরত চান।

ডেলিভারি বয় তরুণীকে বলেন যে, খোলা পার্সেল তারা ফেরত নেন না। এর ফলে তার পক্ষে তরুণী টাকা ফেরত দেওয়া ও সম্ভব নয়।

ঐ তরুণী তখন ডেলিভারি বয়ের মোটর বাইকের চাবি নিয়ে নেন। এরপর অনেক বাকবিতণ্ডার পর ডেলিভারি বয় তরুণীকে তার টাকা ফেরত দিয়ে মোটর বাইকের চাবি নিয়ে চলে যান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ডেলিভারি বয় এই প্রসঙ্গে বলেন-“কারোর পার্সেল খোলার অধিকার নেই আমাদের। তেমনই খোলা পার্সেল ফেরত নেওয়ার ও অধিকার নেই।আর এইভাবে ডেলিভারি বয়ের চাবি আটকে রাখাও যায়না।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here